Jump to content

Wn/bn/রুশ ভ্যাক্সিনের পর মিললো চীনা ভ্যাক্সিনের অনুমোদন; অনুমোদন মিলেছে ভ্যাক্সিন‌ উৎপাদনেরও

From Wikimedia Incubator
< Wn‎ | bn
Wn > bn > রুশ ভ্যাক্সিনের পর মিললো চীনা ভ্যাক্সিনের অনুমোদন; অনুমোদন মিলেছে ভ্যাক্সিন‌ উৎপাদনেরও
নিরীক্ষণের জন্য অপেক্ষমান!  এই নিবন্ধটি ৩১ মে, ২০২৪ অনুযায়ী নিরীক্ষণ বা পর্যালোচনা করা হয়নি। এখানে প্রদর্শিত তথ্যগুলোর পুনঃমূল্যায়ন করুন। (আরও জানুনশোধন)

শনিবার, ১ মে ২০২১

বাংলাদেশে প্রায় ৫০ লক্ষাধিক ব্যক্তি সম্পূর্ণ ভ্যাক্সিনকৃত ও ২৩ লক্ষের অধিক ব্যক্তি এক ডোজ নিয়েছেন। বর্তমানে দেশে প্রায় ২১ লক্ষ ডোজ বাকি আছে। অর্থাৎ ১৩ লক্ষাধিক ব্যক্তির দ্বিতীয় ডোজ অনিশ্চিত। যদিও ভারতে প্রতি মাসে ৫০ লক্ষ ডোজ ভ্যাক্সিন পাঠানোর চুক্তি হয়েছিলো ২০২০ সালের নভেম্বরে, কিন্তু ভাইরাসের বিরাট সংক্রমণে ভারত সব দেশেই ভ্যাক্সিন রপ্তানি বন্ধ করেছে। তখন অন্য দেশ থেকে ভ্যাক্সিন আনার কূটনীতি শুরু হয়। রুশ ভ্যাক্সিনের প্রায় ৪০ লক্ষ ডোজ নিশ্চিত হলেও তা মে মাসে কোনো এক সময় আসবে। কেননা বিশ্বব্যাপী চাহিদার কারণে তারা আগে বাংলাদেশে টিকা পাঠানোয় অপারগতা জানিয়েছিল। অতঃপর মিলেছে চীনের সিনোফার্মের ভ্যাক্সিন কেনা ও প্রদানের নৈতিক অনুমোদন। ২৭ এপ্রিল বলা হয় সেটি আসতে ২ সপ্তাহ লাগবে। এই অবস্থায় রুশ ভ্যাক্সিন বাংলাদেশে উৎপাদনের প্রস্তাব আসে। তারপরই চীন ও রুশ ভ্যাক্সিন বাংলাদেশে উৎপাদনের অনুমোদন পাওয়া গেলো। তবে কখন উৎপাদন শুরু হবে বা কোন প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে উৎপাদন হবে তার কোনো দিশা মিলে নি।


উৎস[edit | edit source]


শেয়ার করুন!

ইমেইল করুন এই খবরকে

ফেসবুকে শেয়ার করুন

টেলিগ্রামে শেয়ার করুন

লিঙ্কডইনে শেয়ার করুন

টুইটারে শেয়ার করুন

শেয়ার করুন!

ইমেইল করুন এই খবরকে

ফেসবুকে শেয়ার করুন

টেলিগ্রামে শেয়ার করুন

লিঙ্কডইনে শেয়ার করুন

টুইটারে শেয়ার করুন